তিন-ফরম্যাটে-তিন-কোচ-পাকিস্তানের

তিন ফরম্যাটে তিন কোচ পাকিস্তানের!


টেস্ট, ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি ভেদে ভিন্ন ভিন্ন অধিনায়কের প্রথা চালু আছে বেশ কিছু দিন ধরে। এ মুহূর্তেও বাংলাদেশ, ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় দলে একাধিক অধিনায়ক আছেন। তবে অধিনায়ক ভিন্ন হলেও কোচ সবক্ষেত্রেই একই ব্যক্তি। তবে এই ধারাটিও সম্ভবত ভাঙতে চলেছে। ভিন্ন ফরম্যাটে ভিন্ন অধিনায়কের মতো কোচও আলাদা রাখার কথা ভাবছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। চলতি মাসের শেষদিকে এ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারে পিসিবি।


Hostens.com - A home for your website

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের একটি সূত্র পিটিআইকে জানায়, ১ সেপ্টেম্বর থেকে চালু তিন বছর মেয়াদি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ এবং ২০২০ সালের শেষদিকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে কেন্দ্র করেই মূলত এমন ভাবনার উদ্ভব, অস্ট্রেলিয়ায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে যাওয়ার আগে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ, ইংল্যান্ড, শ্রীলংকা ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মোট আটটি টেস্ট খেলবে পাকিস্তান। উভয় ফরম্যাটের গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে টেস্ট এবং সীমিত ওভার ক্রিকেটের জন্য আলাদা অধিনায়ক ও কোচের কথা ভাবা হচ্ছে। তবে ম্যানেজার, বোলিং কোচ, ব্যাটিং কোচ, ট্রেনার, ফিল্ডিং কোচ আর সাইকোথেরাপিস্টের মতো পদগুলোতে থাকবেন একই ব্যক্তি।

বিশ্ব ক্রিকেটে ফরম্যাটভেদে আলাদা কোচের দৃষ্টান্ত এখন পর্যন্ত একটাই আছে। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে অস্ট্রেলিয়ার শ্রীলংকায় টি-টোয়েন্টি সিরিজের দায়িত্বে ছিলেন রিকি পন্টিং; প্রধান কোচ ড্যারেন লেম্যান ছিলেন তখন ভারতগামী টেস্ট দলে, যে সিরিজটি শুরু হয়েছিল লংকা সিরিজের দিন তিনেকের মধ্যেই। জানা যায়, ২০২০ সালের নভেম্বরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে মাথায় রেখে আগামী এক বছর বিশ ওভারি ক্রিকেট আর লম্বা দৈর্ঘ্যের ক্রিকেট হিসেবে টেস্টে মনোযোগ রাখতে চাচ্ছে পিসিবি। এ সময়ে ৮টি টেস্টের পাশাপাশি ৯ থেকে ১০টি টি-টোয়েন্টি খেলবে পাকিস্তান; কিন্তু ওয়ানডে মাত্র ৩টি।

Facebook Comments