Foto

রাসেলদের থামাল ধোনির মস্তিষ্ক


ক্যারিবিয়ান দৈত্য আন্দ্রে রাসেলের নেতৃত্বে টগবগে ঘোড়ার মতো ছুটছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স। আজকের ম্যাচে মাঠে নামার আগে নাইটরা টেবিলের শীর্ষে থাকলেও চেন্নাইয়ের সঙ্গে তাদের পয়েন্ট ছিল সমান ৮। ফলে আজ ছিল এককভাবে শীর্ষে ওঠার লড়াই। কিন্তু অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির ক্ষুরধার মস্তিষ্কের সামনে থামতে হলো রাসেলদের। ব্যাটিং লাইন আপে উড়তে থাকা কলকাতাকে একেবারেই মাটিতে নামিয়ে ১০৮ রানেই ‘প্যাকেট’ করে দিয়েছে ধোনির চেন্নাই। আর ১৭ বল হাতে রেখে ৩ উইকেট হারিয়েই তুলে নিয়েছে জয়।


Hostens.com - A home for your website

চেন্নাইয়ের ৭ উইকেটে জয়ের আগে চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে কলকাতার দুর্দান্ত ব্যাটিং লাইনআপ। শেষ পর্যন্ত ২০ ওভার খেলে একশ রানের গণ্ডি (১০৮) টপকাল নাইটরা, তাই তো বেশি। মূলত রাসেলের অপরাজিত ৫০ রানের কল্যাণেই সম্মান রক্ষা। কিন্তু ১০৮ রান তাড়া করে মাঠ ছাড়া আর এমনকি! তিন উইকেট হারিয়ে ফাফ ডু প্লেসিসরা জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে গেল ১৭.২ ওভারেই। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৩ রানে অপরাজিত ছিলেন ওপেনার ডু প্লেসিস। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২১ রান আসে আম্বাতু রায়াডুর ব্যাট থেকে। এই জয়ের ফলে ৬ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলে শীর্ষে এখন চেন্নাই। সমানসংখ্যক ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে কলকাতা।

এবারের আইপিএলে আজই প্রথম ব্যাটিং ধসে পড়তে দেখা গেল দীনেশ কার্তিকদের। আগের ম্যাচে রাজস্থান রয়্যালসের ১৩৯ রানের জবাব দিয়েছে ৩৭ বল হাতে রেখে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে। তার আগের ম্যাচের ইতিহাস তো সবারই জানা। রাসেলের দাদাগিরিতে বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু ২০৫ রানের জবাব দেই ৫ বল বাকি রেখেই। শেষ দুই ম্যাচে যে দলের ব্যাটিং লাইন আপের সঙ্গে বসেছে কতশত বিশেষণ। অধিনায়ক ধোনির সামনে পড়ে তা ভেঙে পড়েছে তাসের ঘরের মতো। ৭৯ রানে ৯ উইকেট হারানো কলকাতা শেষ পর্যন্ত ২০ ওভার খেলে ৯ উইকেট হারিয়ে ১০৮ রান করেছে রাসেলের অপরাজিত ৫০ রানের কল্যাণে।

সুপার কিংসের বোলিং আক্রমণের সামনে আজ দাঁড়াতেই পারেনি শাহরুখ খানের দলের ব্যাটসম্যানরা। দীপক চহার শুরুতেই নাইটদের ব্যাটিং মেরুদণ্ড ভেঙে দিয়েছেন। খেলা যত গড়াল হরভজন সিংহ ও ইমরান তাহিরের দাপটে আরও ছন্নছাড়া কার্তিকরা। রাসেল ছাড়া দুই অঙ্ক ছুঁয়েছেন কেবল রবিন উথাপ্পা (১১) ও অধিনায়ক কার্তিক (১৯)। বাকিদের ব্যক্তিগত রান পাশাপাশি রাখলে মোবাইল নম্বরের ডিজিট মনে হতে পারে। ৪ ওভারে ২০ রান দিয়ে ৩ উইকেট নিয়েছেন দীপক চহার। দুইটি করে উইকেট পেয়েছেন হরভজন সিং ও ইমরান তাহির।

 

Facebook Comments