সংসদে-যোগদান-হতচকিত-যুক্তরাষ্ট্র-বিএনপির-নেতাকর্মীরা

সংসদে যোগদান: হতচকিত যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতাকর্মীরা


হঠাৎ করে ১৮০ ডিগ্রি উল্টে গিয়ে জাতীয় সংসদে বিএনপি এমপিদের শপথ গ্রহণের ঘটনায় হতচকিত বহুধা বিভক্ত যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকরা। তাদের অনেকেই ঘটনাকে প্রথমে বিশ্বাসই করতে পারেননি। যে নির্বাচনকে ভোট চুরির নির্বাচন হিসেবে অ্যাখ্যা দিয়ে বিএনপি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রচারণা চালাচ্ছিল এবং যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির বিভিন্ন অংশ নেতারা তাদের বিভিন্ন কর্মসূচীতে আওয়ামী সরকারকে ভোট চোরের সরকার বলে স্লোগান দিয়েছে তারা এখন তাদের দলের এই অবস্থানে কিংকর্তব্যবিমূঢ়।


Hostens.com - A home for your website

দলের এই ’ইউটার্ন’কে মহাসচিব মির্জা ফখরুলের নেতৃত্বের ব্যর্থতা বলেও মন্তব্য করেছেন কেউ কেউ। আবার অনেকে তারেক জিয়ার সিদ্ধান্তে সংসদে যাওয়ার বিষয়ে সরাসরি কোনো মন্তব্য করতে চাননি।

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সভাপতি আব্দুল লতিফ সম্রাট তাদের দলের এমপিদের শপথ নেওয়ার ঘটনাকে ইতিবাচক বলে মনে করেন। সংসদে না গিয়ে সরকারের ওপর কোন দেশীয় বা আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি করতে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি সংসদে গিয়ে ভালোই করেছে বলে মনে করেন তিনি।

সম্রাট বলেন, ’নির্বাচনে অংশ গ্রহণের সিদ্ধান্ত সঠিক মনে করেছেন যারা তারা কেন সংসদে যাওয়ার বিষয়ে নেতিবাচক অবস্থানে ছিলেন তার কোনো অর্থ আমি খুঁজে পাইনি। সংসদে গিয়ে সরকারকে বৈধতা দেবেন না বলে কেন্দ্রীয় নেতারা এক দিকে গলাবাজি করেছেন, আবার তারাই তাদের ভাষায় অবৈধ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে দেখা করে দেশনেত্রীর চিকিৎসার বিষয়ে দাবি-দাওয়া তুলে ধরেছেন। এটা দ্বিচারিতা।’

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের কারচুপির বিষয়টি সেভাবে তুলে ধরতে পারেনি বিএনপি। আর তাছাড়া যে অনিয়ম হয়েছে সেটা বহির্বিশ্ব জানলেও তারা বাংলাদেশের সাথে তাদের সম্পর্কের ক্ষেত্রে নির্বাচনে কারচুপির বিষয়টিকে আর গণ্য না করে আওয়ামী সরকারের সাথে কাজ করে যাচ্ছে যখন, তখন বিএনপির পক্ষে সংসদে গিয়েই জনগণের কথা ও দেশনেত্রীর মুক্তির কথা বলা শ্রেয়।

বিএনপির মহাসচিব ফখরুল ইসলামের নেতৃত্বের সমালোচনা করে সম্রাট বলেন, দল পরিচালনায় অযোগ্যতা এবং দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন করতে ব্যর্থতার জন্য মহাসচিব ফখরুল ইসলামের পদত্যাগ করা উচিৎ।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ডা. মুজিবুর রহমান বলেন, হাই কমান্ড দেশ ও জনগণের স্বার্থে ও দলের স্বার্থে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাকে আমি সঠিক বলে মনে করি। সংসদে গিয়ে তারা জনগণের কথা বলবেন। আমাদের এমপিরা রাতের ভোটে নির্বাচিত না, তারা দিনের ভোটে নির্বাচিত তাই তারাই বৈধ সংসদ সদস্য।

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সম্পাদক গিয়াস আহমেদ বলেন, ’জুলুমবাজ আওয়ামী সরকারের জুলুমের কারণে প্রধান বিচারপিতকে দেশত্যাগ করতে হয়। তাদের জুলুমে আরো অনেক কিছুই হতে পারে। সবকিছু বিবেচনা করে সংসদে যাওয়াটা বিএনপির একটা কৌশল হতে পারে। এটা সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনেরও অংশ হতে পারে। কারণ সংসদে ও সংসদের বাইরে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনের সুযোগ কাজে লাগিয়ে বিএনপি জনমত গড়ে চূড়ান্ত আন্দোলনে যেতে পারবে।’

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি প্রফেসর দেরোয়ার হোসেন বলেন, ’দলের সিদ্ধান্ত নিয়ে কোনো মন্তব্য করব না। আর তারেক রহমান যদি এই সিদ্ধান্ত দিয়ে থাকেন তাহলে বলার কিছুই নেই।’

নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপির সভাপতি সেলিম রেজা বলেন, ’যারা শপথ নিয়েছেন তারা সরকারের দয়ায় এমপি হয়েছেন। সংসদে যোগ দিতে তারেক রহমান মৌন সমর্থন দিয়েছেন। তিনি কোনো বিবৃতি বা এ সম্পর্কে সরাসরি কোনো বক্তব্য রাখেননি।’

যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী বলেছেন, ’এটা দলের হাই কমান্ডের সিদ্ধান্ত। এটা নিয়ে কোনো মন্তব্য করব না।’

Facebook Comments

" যুক্তরাষ্ট্র " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ

Web Hosting and Linux/Windows VPS in USA, UK and Germany

Visitor Today : 50

Visitor Yesterday : 88

Unique Visitor : 145685
Total PageView : 152637